Gogol Ghoshal

Foodie. Writer turned Storyteller. Aspiring globetrotter.

আমি, স্যার ও চিত্রগুপ্ত

“পথিক, তুমি কি পথ হারাইয়াছ?”

শুনে ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে রইলুম। আনমনে মাথাটাও খানিক চুলকে ফেললুম বোধহয়।

“বলি, লেখক, তুমি কি কলম হারাইয়াছ?”

“কাকে কী বলছেন স্যার? এও নাকি লেখক! লিখেছে তো গুটিকতক গল্প, কবিতা আর একটা-আধটা আর্টিকল - সব মিলিয়ে একডজন হবে কিনা সন্দেহ। সেইগুলোকেই কুমিরছানার মতো বারবার ঘুরিয়ে ফিরিয়ে সকলকে দেখিয়ে বেড়ায়।”

“তাই নাকি, চিগু?” স্যারের মুখ গম্ভীর হয়ে গেল। “তা বাপু, সেইটুকু লেখাই বা আজকাল হয়ে উঠছে না কেন?”

“না, মানে, আসলে ইদানীং কাজের খুব চাপ। আর কাজের বাইরেও নানারকম এটাসেটা…” আমি মিনমিন করে একটু সাফাই গাইবার চেষ্টা করি।

“আরে রাখো ছোকরা তোমার কাজ! ভিক্টর হুগো-র নাম শুনেছ? লেখা শেষ না করা অবধি লোকজনের সাথে দেখাসাক্ষাৎ করবেন না বলে, নিজের জামাকাপড় সব বিসর্জন দিয়ে একা বাড়িতে গামছা পরে বসে ‘হাঞ্চব্যাক অফ নতর্‌দম’ লিখেছিলেন। ইচ্ছে থাকলেই উপায় হয়, বুঝলে?”

“গামছা? ভিক্টর হুগো গামছা পরে থাকতেন?” না চাইতেও আমার মুখটা হা হয়ে গেল।

“আহ্‌ , গামছাটা বড় কথা নয়। চিগু বলতে চাইছে যে ডেডিকেশন থাকা চাই। তোমার আছে সে বস্তু?”

আমি কিছু বলতে পারার আগেই চিত্রগুপ্ত হতভাগা আবার ফোঁড়ন কাটে “ফাঁকিবাজির আরও নমুনা দেখুন স্যার। লেখার সাইজ কমতে কমতে এখন কোয়ার্টার পেজ-এ এসে ঠেকেছে। সেটাকেও গল্প বলে চালাতে চাইছে! কদিন বাদে দেখবেন হয়তো শুধু শিরোনামটুকু দিয়েই দায় সেরে ফেলেছে। বলবে পাঠক তোমরা বাকিটা বুঝে নিও। এ ছেলের পক্ষে স্যার কিছুই অসম্ভব নয়।”

“না, মানে, ফরম্যাট নিয়ে একটু আধটু এক্সপেরিমেন্ট না করলে কি আর…”

“এক্সপেরিমেন্ট না কচু! যত্তসব আঁতলামো। আবার আঁতেল সাজার জন্য কির’ম বড় দাড়ি রেখেছে দেখুন স্যার! লেখক তো নয়, পাক্কা ইয়ে লাগছে দেখে”

“আহ্‌ , চিগু! দাড়ি-গোঁফ এসব ব্যক্তিস্বাধীনতার ব্যাপার। ওতে আমি হস্তক্ষেপ করি না।” বলে স্যার নিজের পাকানো গোঁফে একটু তা দিয়ে নিলেন। “কিন্তু চিগুর বাকি অভিযোগগুলো তো ফেলনা নয় হে। সে ব্যাপারে তোমার বক্তব্য কী?”

তারপর দেখি স্যার প্রায় মিনিট তিনেক ঠায় একইভাবে আমার দিকে তাকিয়ে আছেন। বললাম “স্যার, আপনার ওদিকে বোধহয় নেটওয়ার্ক স্লো চলছে। ভিডিয়ো আটকে গেছে।” বলেই খেয়াল হল, এটা তো স্কাইপে চ্যাট নয়, স্যার যে সাক্ষাৎ আমার সামনে! আমার থেকে রীতিমতো জবাব চাইছেন। গুপি মেরে পার পাওয়া যাবে না। কী গেরো!

ঘোর দুর্বাস্তব। কি ভাগ্যিস তার পরেই ঘুমিয়ে পড়লাম, নয়তো বাকিটা সামলানো আর আমার দ্বারা হয়ে উঠত না।


Archive