Gogol Ghoshal

Foodie. Writer turned Storyteller. Aspiring globetrotter.

ফ্রান্স - ১

আজকাল প্রায় সব দেশেই ঢোকার সময়ে নানারকম উৎকট প্রশ্ন করে। তার উপর ফ্রান্সে কিছুদিন আগে বেশ কয়েকটা ঘটনা ঘটে গেছে। কনফারেন্স কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে আমাদের বলেও দেয়া হয়েছিল যে এবার নিরাপত্তার খুব কড়াকড়ি। ফলে জানতাম প্রশ্নপত্র কঠিন আর লম্বা হবে। এদিকে আমার ফ্রেঞ্চ এখনো চোস্ত হয়নি, ছড়িয়ে ফেলার সম্ভাবনা প্রবল।

তাই ঝামেলা কমানোর জন্য বর্ডার কন্ট্রোল অফিসারকে প্রথমেই বলে দিলাম: “Bonjour. Je ne parle pas français. Désolé!” মানে - নমস্কার। আমি ফরাসি বলতে পারি না। দুঃখিত!

অফিসার ভদ্রলোক তাই শুনে জন্মভূমি-র পিসিমার স্টাইলে এক ভুরু তুলে তাকালেন। বললেন - কেবেক (Quebec) থেকে আসা হচ্ছে বুঝি?

আমি তো হাঁ! তখনো আমার পাসপোর্ট ছুঁয়েও দেখেননি। আর এমনও নয় যে ঐ সময়ে খালি ক্যানাডা থেকে আসা ফ্লাইটের প্যাসেঞ্জাররা দাঁড়িয়ে ছিলাম লাইনে। তাহলে ধরলেন কী করে?

আমার অবাক চাহনির উত্তরে অফিসার কাঁধ ঝাকালেন, “ও বোঝা যায়”। একটা তাচ্ছিল্যের হাসিও যোগ হলো। তারপর শুধু কদিন ফ্রান্সে থাকবো এটা জিজ্ঞেস করেই ছেড়ে দিলেন।

আমার মনে পড়লো যে শুনেছিলাম প্যারিসের লোকেরা নাকি কেবেকোয়া ফরাসি শুনলে নাক সিটকোয়। বলে, গেঁয়ো ফরাসি।

প্রায় তিন বছর হলো মন্ট্রিয়ালে আছি। খুবই লজ্জার সাথে স্বীকার করি, এখনো কথা চালানোর মতো ফরাসি শিখে উঠতে পারিনি - বলতে গিয়ে বারবার হোঁচট খাই। তবু কি কেবেকোয়া টান টা কথার মধ্যে ঢুকে পড়েছে? কে জানে!

এতদিন ধরে Quebec এ থেকেও ফ্রেঞ্চ-এ সড়গড় না হতে পারার দুঃখ - অফিসার এক হাসিতে ভুলিয়ে দিলেন। হেয় করতে গিয়ে জাতে তুলে দিলেন। মনে মনে কলার উঁচু করে ফ্রান্সে ঢুকে পড়লাম।


(চলবে)


Archive